আমাদের সম্পর্কে

“পশ্চিম জয়রামপুর জনসেবা প্রাতিষ্ঠান”, ১৯৫৪ সালে জনসেবার জন্য এই প্রতিষ্ঠানটি স্থাপিত হয়েছিল। বিরাট অঞ্চল নিয়ে মাত্র কয়েকটি পরিবারের উপস্থিতিতে তৈরি হয়েছিলো এই প্রতিষ্ঠানটি , তাদের আজ অনেকেই আমাদের মধ্যে নেই, রয়ে গেছে এই প্রতিষ্ঠানটি । না ছিল কোন পাকা রাস্তা,না ছিল বিদ্যুৎ । এমনকি তখনকার সমিতি পরিচালন ব্যাক্তিদের বর্ষাকালে এই অঞ্চলে কারোর মৃত্যু ঘটলে মৃতদেহ কলাগাছের ভেলায় করে বয়ে নিয়ে যেতে হত। কেননা বর্ষাকালে এই অঞ্চলের চারদিক জলমগ্ন থাকতো। কিন্তূ তখনকার প্রজন্ম দমবার পাত্র নন, এই সব অসুবিধাকে দূরে রেখে মানুষের স্বার্থে সকল রকম উন্নতি সাধনে লিপ্ত থাকতেন। বিভিন্ন রাস্তা ঘাট তৈরি করা , এটা ছিল একটা সান্ধ্যকালীন কাজ। কালক্রমে তারা স্থাপন করলেন “পশ্চিম জয়রামপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়”, যেটা কিনা দাদুর স্কুল নামে পরিচিত ছিল। পরবর্তীকালে ঐ দাদুর নামেই তারা স্থাপন করলেন উচ্যমাধ্যামিক বিদ্যালয় , যার নাম “পর্ণশ্রী সতীপ্রসন্ন বিদ্যাপীঠ” । আর এই সমস্ত সেবামূলক কাজের ধারা বাহিকতা বহন করে চলেছে পরের পর প্রজন্ম । স্থাপিত হল পাঁকা সমিতি গৃহ । জয়রামপুর জলা রোডের পরিবর্তে রাস্তার নাম হল “সত্যজিৎ রায় সরণি” । প্রতি বাড়ির নং পরিবর্তন করা হল সঠিক ঠিকানা খুজে পাবার স্বার্থে । তার সঙ্গে নানাবিধ খেলাধুলা , সামাজিক ক্রিয়াকর্ম । তৈরি হল শিশু কিশোরদের একটি শাখা , নাম “সোনালী মণিমেলা” । যার নাম পশ্চিম বঙ্গবাসীর মুখে মুখে আজও শোনা যায় । কিন্তূ বর্তমানের পঠন পাঠন ও সামাজিক চাহিদার পরিবর্তনে আজ আর মণিমেলা চালানো সম্ভব হয়না । কিন্তূ আমাদের জনসেবা প্রতিষ্ঠানের খেলার মাঠ আজও সোনালী মণিমেলার মাঠ নামে পরিচিতি পেয়ে থাকে । আর এই দুই সংগঠনের যুক্ত প্রয়াসেই আমাদের নিজস্ব মাঠের সৃষ্টি । আর আজ সেখানেই এই অঞ্চলের মানুষের অর্থ সাহায্যের বিনিময়ে সকলের প্রয়োজন মেটানোর জন্য স্থাপিত হয়েছে কমুউনিটি হল , শুধু এই অঞ্চলের কেন , এর সুবিধা পার্শ্ববর্ তী রাজ্য , এমনকি আসামের বাসিন্দারাও উপভোগ করেছেন । সামান্য অনুদানের মাধ্যামে , যেটা কিনা এই সম্পতির উন্নয়ন এবং মেরামতির কাজে লাগান হয় । এই প্রতিষ্ঠান সরকারী সাহায্যের মাধ্যামে একটি শরীর চর্চার বিভাগও চালু করেছে , যার উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় বিধায়ক ডঃ পার্থ চাটাজ্জী মহাশয় এবং স্থানীয় পৌরপিতা শ্রী অঞ্জন দাস মহাশয় । কাজেই এই সংগঠনটিকে আরও মজবুত ও শক্তিশালী করতে আপনার উপস্থিতি এবং সহযোগিতা একান্তভাবে প্রয়োজন ।

পৃষ্ঠপোষক মন্ডলী

শ্রী অঞ্জন দাস

শ্রী সুনীল কুশারী

শ্রী পঙ্কজ চক্রবর্তী

শ্রী শৈলেশ মজুমদার

শ্রী মানিকলাল চক্রবর্তী

উপদেষ্টা মন্ডলী

শ্রী মনোজ চক্রবর্তী

সভাপতি

শ্রী পিযুষ ঠাকুরতা

সদস্য

শ্রী বিজয়কৃষ্ণ রায়

সদস্য

শ্রী প্রণব বসু

সদস্য

শ্রী সনৎ কুশারী

সদস্য

শ্রী বিশ্বজিৎ দাস

সদস্য

কার্যনির্বাহী সমিতি

শ্রী উদয়ন চক্রবর্তী

সভাপতি

শ্রী অশোক কুন্ডু

সহসভাপতি

শ্রী প্রবীর বসু

সাধারণসম্পাদক

শ্রী ইন্দ্রনীল পাল

যুগ্ম সহসম্পাদক

শ্রী মনোরঞ্জন চৌধুরী

যুগ্ম সহসম্পাদক

শ্রী প্রীতম সেনগুপ্ত

অর্থসচিব

শ্রী অমর নাথ সাহা

অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষক

এম /এস সৌমেন বিশ্বাস এন্ড কো :

নিরীক্ষক

শ্রী স্মৃতিময় মন্ডল

ক্রীড়াসম্পাদক

শ্রী দেবাশীষ দে

সহক্রীড়াসম্পাদক

শ্রী অভিজিৎ পাল

সহক্রীড়াসম্পাদক

শ্রী রঞ্জিত পাল

যুগ্ম সাংস্কৃতিকসম্পাদক

শ্রী দেবাশীষ ব্যানার্জী

যুগ্ম সাংস্কৃতিকসম্পাদক

কার্যনির্বাহ সমিতি সদস্য

শ্রী বিশ্বনাথ সরকার

শ্রী দেবব্রত বিশ্বাস

শ্রী সুরভ চক্রবর্তী

শ্রী বিশ্বনাথ জানা

শ্রী তন্ময় দত্ত

শ্রী সঞ্জয় অধিকারী

শ্রী সমীর কুশারী

শ্রী জয়ন্ত দত্ত

শ্রী টোকন মজুমদার